সরাসরি প্রধান সামগ্রীতে চলে যান

**বাংলার সন্মান বেঙ্গল এক্সিলেন্সি অ্যাওয়ার্ড ২০২০**


গতিময় জীবনের বাঁধাকে অতিক্রম করতে যে বা যারা সমাজ জীবনে বিশেষভাবে দাগ রেখেছেন বা খ্যাতি লাভ করেছেন তাঁদের অধ্যাবসায় এবং কঠোর পরিশ্রম দিয়ে।  সেই সব মানুষদের আলাদা করে বরণ করে বাংলা ও বাঙ্গালীর সকল স্তরের বরণীয় ব্যাক্তিদের নিয়েই গীতাঞ্জলি আয়োজিত "বেঙ্গল এক্সিলেন্সি অ্যাওয়ার্ড ২০২০" নেহেরু চিলড্রেনস মিউজিয়ামে হয়ে গেলো। এদিনের সন্ধ্যায় এই পুরষ্কার পেলেন সমাজে বিভিন্ন পেশায় সফল ব্যাক্তিরা।  

প্রথমেই মুম্বাই থেকে ভার্চ্যুয়ালের মাধ্যমে পুরষ্কৃত হলেন শ্রীনন্দী (সৃজনশীল নৃত্যশিল্পী)।  এরপর ডাক্তার অরুণাভ লালা ( অস্থি রোগ বিশেষজ্ঞ),  সুধীর দত্ত( সংগীত পরিচালক), সাবির আহমেদ ( সমাজসেবী),  কাশীনাথ দাস ও লক্ষী দাস ( সমাজসেবী)  মৃগাঙ্ক ব্যানার্জী (শিশু সাহিত্যিক),  সোহিনী হুসেন (উদ্যোগপতি ও সমাজসেবী),  অনুপ বর্ধন ( সাংবাদিক),  আলথিয়া ফিলিপস ( সাংবাদিক), সুবীর কুমার ঠাকুর ( অর্থনীতিবিদ),  পরী (সমাজসেবা সংগঠন),  জয়দেব সিকদার ( সমাজকর্মী),  বিশ্বজিৎ মন্ডল ( সমাজসেবক), সমু মিত্র( চলচ্চিত্র সংগঠক), শিবনাথ দে সরকার এবং প্রণব বর্ধন (এশিয়ায় সোনাজয়ী ক্রিড়াবিদ), শিবু দে (ক্রীড়া সংগঠক) ,ঝুমকি সেন (সংগীত শিল্পী) ,
 এন. সি. বসাক(প্রাতিষ্ঠানিক) l
এদিনের আকর্ষণ ছিল দীর্ঘ সফল কর্ম জীবনের কৃতিত্ব হিসেবে লাইভটাইম অ্যাচিভমেন্ট পুরষ্কার পেলেন রাজনীতিবিদ ও রাজ্যের মন্ত্রী  সাধন পান্ডে এবং চলচ্চিত্রের কিংবদন্তী অভিনেত্রী মাধবী মুখার্জী। এদিন পুরষ্কার প্রদান করলেন সাংসদ শতাব্দী রায়, চিত্র পরিচালক রেষ্মী মিত্র। সংগীত পরিবেশন করেন সুজয় মুখোপাধ্যায়,  রাখী দত্ত এবং পল্লবী ঘোষ। সঞ্চালক মহুয়া ভট্টাচার্য।  শতাব্দী কন্যা সামিয়ানা ব্যানার্জীর নৃত্য উপস্থিত সকলের নজর কাড়ে।

সমাজের কল্যাণকর মানুষদের অবদানকে সন্মান জনাতেই আমাদের এই উদ্যোগ জানালেন গীতাঞ্জলির সভাপতি সুব্রত সিংহা ও আহ্বায়ক দেবব্রত রায় চৌধুরী।  আগামীদিনেও বাংলার কৃতিদের যথার্থ সন্মান জানাবো বলে তারা জানান।

মন্তব্যসমূহ

এই ব্লগটি থেকে জনপ্রিয় পোস্টগুলি

কামারহাটি পৌরসভার অন্তর্গত ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের আদর্শ পল্লীতে গতকাল গভীর রাতে বোম এর আওয়াজ কেঁপে উঠলো বাম প্রার্থী অদ্রি রায় বাড়ির সামনে :

কামারহাটি পৌরসভার অন্তর্গত ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের আদর্শ পল্লীতে গতকাল গভীর রাতে বোম এর আওয়াজ কেঁপে উঠলো  ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল গভীর রাতে কামারহাটি পৌরসভার অন্তর্গত ২৫ নম্বর ওয়ার্ডে বামফ্রন্ট মনোনীত সিপিআই(এম )প্রার্থী অদ্রি রায় বাড়ির সামনে l নির্বাচনের প্রচার শেষ হবার পরেই সিপিএম প্রার্থী বাড়িতে বোম মারা হয় l বোম আওয়াজে এলাকার কেঁপে উঠে l বোম এর আওয়াজ এ এলাকার মানুষ বাড়ি থেকে বেরিয়ে পড়ে l রাস্তার মধ্যে বোম ফাটার পরে l   ফেটে পড়া বোম এর সামগ্রিক ছড়িয়ে পড়ে এলাকার l এলাকার মানুষের মধ্যে আতঙ্ক ছড়ায় l ঘটনাস্থলে পরিদর্শনে বেলঘড়িয়া থানার পুলিশ আসে l সিপিআই(এম )প্রার্থী অদ্রি রায় এর আগেও তার প্লেক্স এর উপরে তৃণমূল প্রার্থী অর্পিতা ঘোষের স্টিকার লাগিয়ে দেওয়া হয় অভিযোগ তোলেন সিপিএম  প্রার্থী অদ্রি রায় l ভোটের প্রচার শেষ হতেই এলাকায় আতঙ্ক করার জন্যই এই বোম বাজি করা হয় গভীর রাতে l অদ্রি রায় জানায় এই বোম বাজি করে আতঙ্কিত করা যাবেনা আটকানো যাবেনা ভোটারদের অধিকার l

নির্মল ফিল্মস অরিজিনালের ইউটিউবচ্যানেলে মুক্তি পেতে চলেছেস্বল্প দৈর্ঘ্যের ছবি *“বিয়ে করবো*

এবার প্রিয়-পূজার বিয়ে নিয়ে ছবি।  টলিপাড়ায় কান পাতলে শোনা যাচ্ছে পরিচিত মডেল ও অভিনেত্রী পূজা দত্ত নাকি এই বৈশাখে বিয়ে করতে চলেছেন অভিনেতা প্রিয়রঞ্জনকে । তবে রাস্তবে বিষয়টি সেরকম নয় । পূজা, প্রিয়রঞ্জনকে বিয়ে তো করছেন তবে রিয়েল লাইফে নয়, রীল লাইফে ।  সম্প্রতি শেষ হয়ে গেল আলোরানী দাস নিবেদিত ও নির্মল ফিল্মস অরিজিনাল প্রযোজিত জমজমাট কমেডি স্বল্প দৈর্ঘ্যের ছবি “বিয়ে করবো” র শুটিং । “বিয়ে করবো” র মুখ্য ভুমিকায় দেখা যাবে টলিউডের পরিচিত মুখ পূজা দত্ত ও অভিনেতা প্রিয়রঞ্জনকে । এছাড়াও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে থাকছেন টেলি অভিনেতা সুজিত ব্যানার্জি, দুর্গাপদ দোলই ও প্রমুখরা।  অভিনেত্রী পূজা দত্তের মতে, “বিয়ে করবো” র এই বিয়ে সম্পূর্ণ ভিন্ন ধর্মের যা আগে কেউ কখনো দেখেননি বা শোনেনও নি । প্রিয়রঞ্জনের কথায়, এই বিয়ে এক অন্য মাত্রার বিয়ে যা না দেখলে খুব মিস করা হবে । পরিচালক সুমন দাসের পরিচালনায় “বিয়ে করবো” র পোস্টার ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোড়ন ফেলেছে। পোস্টার দেখার পর দর্শকমহলের একাংশের বিশ্বাস, “বিয়ে করবো” র প্রিয়-পূজা জুটিকে দর্শকরা সানন্দেই গ্রহণ করবেন।  যাইহোক,সব মিলিয়

নবম বর্ষে বাসন্তী মাতার আরাধনায় সোনারপুর নতুনপল্লী রেনবো স্পোর্টিং ক্লাবঃ

   সোনারপুর নতুনপল্লী রেনবো স্পোর্টিং ক্লাবের বাসন্তীপূজো এবং নবম বর্ষে পদার্পন করল। প্রতিমা এবং  মন্ডপ প্রতিবারের মতো এবারেও সাবেকিয়ানার ছাপ রেখেছে দর্শনার্থীদের মনে। এদিন পূজোর উদ্যোগতাদের  তরফে মিহির মন্ডল আমাদের জানালেন  তাদের পূজোর কথা। তিনি বলেন ষষ্ঠীর দিন স্থানীয় বিধায়ক অরুন্ধতী মৈত্রের হাত ধরে এবছরের  পূজোর সূচনা হয়। এবছর ক্লাবের তরফে পূজোর পাঁচ দিন নানারকম জনমুখী ও সাংস্কৃতিক  অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।  তাছাড়া অষ্টমী দিন প্রায় তিন হাজার মানুষকে ভোগ বিতরনের ব‍্যবস্থা করা হয়েছে। এই পূজোর আর এক উদ্যোগতা নবজীবন বৃদ্ধাবাসের কর্নধার দেবাশীষ সরকার  জানান এবার  তার এবং  ক্লাবের উদ্যোগে পিছিয়ে শিশুদের  শিক্ষা সামগ্রী ও মহিলা ও পুরুষদের বস্ত্রবিতরন করা হয়। প্রায় ১৫০জনকে এই উদ্যোগে সামিল করা হয়।এদিন এই পূজোর মহিলা উদ্যোগতাদের তরফে দোলন মন্ডল, শঙ্করি রায় জানালেন এবছর এই পূজোর চাদা কাটা থেকে শুরু করে পূজোর সব আয়োজন মহিলারা করেছেন।  এদিন মন্ডপে  গিয়ে  দেখা গেল মহিলারা সন্ধি পূজোর আয়োজনে ব‍্যস্ত।  দোলন ও শঙ্করি দেবী জানান দশমীতে পান্তা কচুর শাক নয়রকম ভাজ